Home / বাংলা টিপস / তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেড় বছর যুক্তরাষ্ট্রে সহকারী শিক্ষিকা

তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেড় বছর যুক্তরাষ্ট্রে সহকারী শিক্ষিকা

তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেড় বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছেন তানিয়া রহমান নামের টাঙ্গাইলের মির্জাপুর পৌরসভার বাওয়ার কুমারজানী স’রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। যোগাযোগ করতে না পেরে তার বি’রুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না স্থানীয় শিক্ষা অফিস।

উপজে’লা শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, তানিয়া রহমান ২০১৯ সালের ৩ জুলাই থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত ব্যক্তিগত সমস্যা দেখিয়ে স্কুল থেকে ছুটি নেন। ছুটি নিয়ে ওই বছরের ২ জুলাই সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। এরপর থেকে স্কুল কর্তৃপক্ষের স’ঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই এই শিক্ষিকার।

উপজে’লা শিক্ষা অফিস থেকে একাধিকবার এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চেয়ে তার ঠিকানায় পত্র পাঠালেও কেউ তা গ্রহণ করেননি। সর্বশেষ গত বছরের ২৩ জুলাই কৈফিয়ত চেয়ে পত্র পাঠায় উপজে’লা শিক্ষা অফিস। ওই পত্রটিও কেউ গ্রহণ করেননি।

এ ব্যাপারে জানতে বাওয়ার কুমারজানী স’রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলুয়ারা বেগমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মির্জাপুর উপজে’লা শিক্ষা অফিসার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, সহকারী শিক্ষিকা তানিয়া রহমান তিন মাসের ছুটি নেন। এরপর দীর্ঘদিন তানিয়া রহমান বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার বি’ষয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে গেছেন। একাধিকবার পত্র দিয়েও তার কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। তার বর্তমান অবস্থান সম্প’র্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেড় বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছেন তানিয়া রহমান নামের টাঙ্গাইলের মির্জাপুর পৌরসভার বাওয়ার কুমারজানী স’রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। যোগাযোগ করতে না পেরে তার বি’রুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না স্থানীয় শিক্ষা অফিস।

উপজে’লা শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, তানিয়া রহমান ২০১৯ সালের ৩ জুলাই থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত ব্যক্তিগত সমস্যা দেখিয়ে স্কুল থেকে ছুটি নেন। ছুটি নিয়ে ওই বছরের ২ জুলাই সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। এরপর থেকে স্কুল কর্তৃপক্ষের স’ঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই এই শিক্ষিকার।

উপজে’লা শিক্ষা অফিস থেকে একাধিকবার এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চেয়ে তার ঠিকানায় পত্র পাঠালেও কেউ তা গ্রহণ করেননি। সর্বশেষ গত বছরের ২৩ জুলাই কৈফিয়ত চেয়ে পত্র পাঠায় উপজে’লা শিক্ষা অফিস। ওই পত্রটিও কেউ গ্রহণ করেননি।

এ ব্যাপারে জানতে বাওয়ার কুমারজানী স’রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলুয়ারা বেগমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মির্জাপুর উপজে’লা শিক্ষা অফিসার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, সহকারী শিক্ষিকা তানিয়া রহমান তিন মাসের ছুটি নেন। এরপর দীর্ঘদিন তানিয়া রহমান বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার বি’ষয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে গেছেন। একাধিকবার পত্র দিয়েও তার কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। তার বর্তমান অবস্থান সম্প’র্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

Check Also

এলার্জি কি, কেন হয়? ও দূর করার উপায়

এলার্জি একটি সর্বজনীন বহুল প্রচলিত শব্দ। বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষের কাছে এক অসহনীয় ব্যাধি। এলার্জিতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *