Home / বাংলা হেল্‌থ / চরফ্যাসনে জোড়া খুনের তথ্য উদঘাটন

চরফ্যাসনে জোড়া খুনের তথ্য উদঘাটন

ভোলার চরফ্যাসন উপজেলার আসলামপুর ইউনিয়নে জোড়া খুনের ১৪ দিন পর দগ্ধ দুই লাশের মাথা ও হত্যায় ব্যবহৃত ছেনি উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে হত্যায় ব্যবহৃত ছেনি ও বৃহস্পতিবার বিকেলে বিচ্ছিন্ন দু’টি মাথা উদ্ধার করা হয়।

চরফ্যাসন থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ও জমি গ্রহীতা মো: বেল্লালের দেয়া তথ্যমতে ঘটনাস্থলের অদূরে সুন্দরী ব্রিজ সংলগ্ন খাল থেকে ছেনিটি উদ্ধার করা হয়।

বিশেষ প্রক্রিয়ায় ঘটনাস্থল থেকে এক হাজার গজ উত্তরে ফরাজী বাড়ির মহিবুল্লার ঘরের পেছনে টয়লেটের সেপটিক ট্যাংক থেকে মাথা দু’টি উদ্ধার করা হয়।

ভোলা জেলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামিরা জানিয়েছেন লাশ দু’টি চরফ্যাসন পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত উপেন্দ্র সরকারের ছেলে অমিত সরকার (৫৫) ও দুলাল সরকারের (৪০)।

এ ঘটনায় পুলিশ হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী মো: বেল্লাল, বেল্লালের শ্বশুর আবু মাঝি ও ভাই কাশেমকে গ্রেফতার করেছেন।

গ্রেফতারকৃতদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তিনি আরো জানান, জমি কেনা-বেচায় লেনদেনের জেরে ঘটনার দিন রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার জমি বিক্রেতা দু’সহোদরকে ঘটনাস্থল আসলামপুর সুন্দরী ব্রিজ এলাকার জামাল ভূঁইয়ার পরিত্যক্ত বাগানে নিয়ে প্রথমে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে গভীর রাতে লাশ দু’টি আগুনে পুড়িয়ে দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে মাথা দু’টি মহিবুল্লার বাড়ির টয়লেটের সেপটি ট্যাংকিতে ফেলে দেয়।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাদেরকে সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় মাথা দুটি ও ছেনি উদ্ধার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে আসলামপুরের সুন্দরী ব্রিজ সংলগ্ন জামাল ভুঁইয়ার পরিত্যক্ত বাগানে স্থানীয় কৃষক আজাদ ছাগল নিয়ে ঘাস খাওয়াতে গেলে পোড়া লাশ দেখে পুলিশকে জানালে পুলিশ লাশ দু’টি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায়।

Check Also

গ’লা ও ঘাড়ের কালো দাগ দূর করবেন যেভাবে

অনেকেই ঘাড়ে কালো দাগ থাকায় বড় গ’লার পোশাক পড়তে পারেন না। সব সময় কলার দেওয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *